রেবাতটে

বিরানে কথা কয় গাঙচিল,ডানায় ডানায় রঙ ছড়ায়-
বর্ণমালায় বাহারী নৃত্যে আনমনে পাহাড়ের কঠিন বুকে,
এক অভিমানী চিড় ওঠে ফুটে ।
নিরালায় দুপায়ে জোড়া ঘুঙুর বাঁধে ব্যকুল চোখ, প্রপাতের গভীর খাদে।
বুকে তার কথাদের গোপন কথামালা, আমিও দুহাত পাতি। পাই যদি’..যদিবা
তারানায় এক আঁজলা !এক আঁজলা?আমাকে দিতে চায়না সে শব্দঅলংকার
আমি কুড়াই অবশিষ্ট অবহেলা,ঘৃণা ,তিরষ্কার এবং অমনোযোগ।
তবুও ভালো লাগায় থৈ থৈ চারপাশ,উত্তর-দক্ষিণ,পূর্ব-পশ্চিম
অনিমেষ উচ্ছ্বাসভেসে যাই,ডুবে যাই আমি আমারই ভেতর ।
নজরুলের ঝাঁকড়া চুলে কালবৈশাখী ঝড়, হাতে তুলে দিই বাঁশের বাঁশী!
বাঁশের বাঁশী, বিষের নয়! বেহাগ-বসন্তে ধ্বনি উথলায়,
ভরিয়া পরান শুনিতেছি গান’......আসিবে আজি.....বন্ধু মোর’......
আমার রেবা তটে একেলা সুর খেলে নিরর্ঝরের সুপ্ত তানপুরায়
এই অবেলায়.....ভেসেযায়; ভেসেযায় জেগে থাকা কারাবাস
ভুলে যাই হিসেবের সুক্ষ্ম হিসাব নিয়মের উপসংহার,পরিশিষ্ট উপহাস !
বেহাগ-বসন্তে ধ্বনি উথলায়,আসিবে আজি.....বন্ধু মোর’......


0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

About